Return to the talk Return to talk

Transcript

Select language

Translated by Mohammad Tauheed
Reviewed by Mueed Abdul

0:11 এখানে আসতে পেরে আমি ভীষন ভাগ‍্যবান। নিজেকে সতি‍্য অনেক সৌভাগ‍্যবান মনে হচ্ছে। এখানে আমার প্রতি যে সহানুভূতি প্রদর্শীত হয়েছে তাতে আমি অভিভূত। আমি আমার স্ত্রী লেসলি কে ডাকলাম, এবং ওকে বললাম, "তুমি জানো, এখানে কত ভাল মানুষ যে কত ভালো ভালো কাজ করার চেষ্টা করছেন। আমার মনে হয় আমি একদল দেবতার রাজে‍্য এসে হাজির হয়েছি।" এটা একটা বাস্তব অনুভূতি। যাইহোক আমি আসল কথায় ফিরি -- ঘড়ি তো আর বসে নেই।

0:35 আমি একজন সরকারি স্কুল শিক্ষক, এবং আমি শুধু আমার সহকারির একটা গল্প আপনাদের সাথে শেয়ার করতে চাই। ওর নাম প‍্যাম মোরান ভার্জিনিয়ায়, আলবেমারলে কাউন্টি তে, ওই ব্লু রিজ পর্বতমালার পাদদেশে। ও ভিষণ হাই-টেক সহকারী। ও স্মার্ট বোর্ড ব‍্যবহার করে, ব্লগ লেখে, টুইট করে, ফেসবুক দেখে, ও এই যাবতিয় হাই-টেক কাজগুলো করে। ও একজন প্রযুক্তি ও প্রশিক্ষণ িবষয়ক লিডার। কিন্তু তার অফিসে পুরোনো কাঠের, ক্ষয়ে যাওয়া টেবিল আছে, কিচেন টেবিল -- মুছে যাওয়া সবুজ রং, এই ভেঙ্গে পড়ল বলে মনেহয়। আমি বললাম, "প‍্যাম, তুমি এরকম আধুনিক, চৌকস একজন মানুষ কিন্তু এই পুরোনো টেবিলটা তোমার অফিসে কেন?"

1:13 ও আমাকে বললো, "তুমি জানো, আমি সাউথওয়েস্টার্ন ভার্জিনিয়ায় বড় হয়েছি, ভার্জিনিয়ার গ্রামের কয়লা খনি আর চাষের ক্ষেতে বেড়ে উঠেছি, আর এই টেবিল ছিল আমার দাদার রান্নাঘরে। আমরা খেলাধুলা করে ফিরতাম, আর উনি ফিরতেন লাঙ্গল টেনে, কাজ সেরে, তারপর আমরা সবাই এই টেবিলটার চারপাশে বসতাম। আর বড় হওয়ার সাথে সাথে, আমি অনেক জ্ঞান বিজ্ঞানের কথা শুনি অনেক অন্তর্দৃষ্টি এবং প্রজ্ঞার কথা এসেছে এই টেবিলটার ওপাশ থেকে, আমি এই টেবিলটা কে প্রজ্ঞা টেবিল ডাকা শুরু করি। উনি যখন মারা যান, আমি এই টেবিলটা আমার অফিসে নিয়ে আসি, টেবিলটা আমাকে উনার কথা মনে করিয়ে দেয়। আর মনে করিয়ে দেয় এই ফঁাকা যায়গাটার চারপাশের সব ঘটনাগুলো।" আমি আপনেদেরকে যে প্রজেক্ট-এর কথা বলব সেটা হচ্ছে বিশ্ব শান্তি গেম, এবং কার্যত এইটাও একটা ফাঁকা যায়গা। আমি এটাকে ভাবতে ভালোবাসি.. ২১ শতকের জ্ঞানের টেবিল হিসেবে, সতি‍্যই।

2:02 এই সবই শুরু হয়েছিল সেই ১৯৭৭ সালে। আমি তখন যুবক, এবং আমি তখন কলেজ ছাড়ছি আর ঢুকছি। আর আমার বাবা-মা ছিলেন ভীষণ ধৈর্য‍্যশীল, কিন্তু আমি তখন ভারতে অনিয়মিত ভাবে অবস্থান করছিলাম এক রহস‍্যময় অন্বেষণে। আমার মনে আছে আমি যখন শেষ বার ভারত থেকে ফিরলাম -- আমার লম্বা সাদা আলখাল্লা পরে সাথে বিশাল দাড়ি আর জন লেননের মত চশমা পরে, আমি বাবাকে বলেছিলাম, "বাবা, আমার ধারণা, আমি মনেহয় আধ‍্যাত্বিক প্রজ্ঞা খুঁজে পেয়েছি।" উনি বলেছিলেন, "যাইহোক আরো একটি জিনিস আছে যা তোমায় খুজতে হবে।" আমি বললাম, "বাবা, কী সেটা?" উনি বললেন "একটা চাকরি।" (হাসি) তো উনারা আমাকে কোন একটা ডিগ্রি নেয়ার বেপারে আকুতি জানালেন। তাই আমি নিলাম একটা ডিগ্রি এবং সেটা হোল শিক্ষার ওপর । এটা ছিল একটি পরীক্ষামূলক শিক্ষা কার্যক্রম। এইটা দঁাতের ডাকতারিও হতে পারত, কিন্তু ওই "পরীক্ষামূলক" শব্দটা সেখানে ছিল, আর তাই ওই কার্যক্রমে আমাকে যেতে হয়েছে।

2:57 তারপর আমি একটা চাকরির ইন্টারভিউতে গেলাম ভার্জিনিয়ার রিচমন্ড পাবলিক স্কুলে, রাজধানী শহরে, একটা থ্রি-পিস সু‍্যট কিনলাম -- এই কর্মকান্ডে আমার প্রাপ্তি, আমার লম্বা দাড়িটা ছিল আর ছিল ঘন পঁেচানো চুল আর আমার প্ল‍্যাটফর্ম জুতা -- তখন ছিল ৭০ এর দশক -- আমি ঢুকলাম, বসলাম এবং আমার ইন্টারভিউ নেয়া হলো। এবং আমার ধারনা ওদের শিক্ষক নিয়গ দেয়া খুব দরকার ছিল, কারন ওখানে যে সুপারভাইজার ছিলেন, উনার নাম অ‍্যানা অ‍্যারো, বলেছিলেন আমি অসাধারণ প্রতিভাবান শিশুদের শিক্ষকতার চাকরি পেয়েছি। এবং আমি এত হতবাক আর বিস্মিত হয়েছিলাম, আমি উঠে দাড়ালাম এবং বললাম, "যাইহোক, আপনাকে ধন‍্যবাদ, কিন্তু আমার কাজটা কী?" (হাসি) আলাদাভাবে প্রতিভাবান শিশুদের শিক্ষার বেপারটা তেমন গড়ে উঠেনি। আসলেও তেমন ব‍্যবহার উপযোগী কোন শিক্ষা উপকরণ ছিল না। তাই আমি বললাম, "আমি কী করব?" এবং উনার উত্তর আমাকে অবাক করেছিল। বিস্মিত করেছিল। উনার উত্তরটাই আমার পথ বেঁধে দিয়েছিল -- এরপরে আমার পুরো পেশাগত জীবনে ঐ কথাটাই মাথায় রেখেছি। উনি বলেছিলেন, "তুমি কী করতে চাও?" এবং ঐ প্রশ্নটাই সামনের পথ খুলে দিল। সেখানে কোন প্রোগ্রামের নিয়ম কানুন ছিল না, কোন নির্দেশিকাও ছিল না, প্রতিভাবানদের শিক্ষার স্ট‍্যান্ডার্ডও ছিল না -- সে রকম। এবং উনি এমন একটা পথ খুলে দিলেন, এর পর থেকে আমার যাত্রা চলতে থাকলো আমার ছাত্রদের পথ খুলে দেয়ার যাত্রা, ফঁাকা জমি তৈরির যাত্রা, যেখানে তারা সৃষ্টি করে, উপলব্ধি করে তাদের নিজেদের বোধ থেকে।

4:14 এই ঘটনা ১৯৭৮ এর, এবং এরপর আমি আরও অনেক বছর শিক্ষকতা করেছি, আমার এক বন্ধু আমাকে এক নবীন ফিল্ম নির্মাতার সাথে পরিচয় করিয়ে দিলেন। তঁার নাম ক্রিস ফারিনা। ক্রিস ফারিনা তার নিজের পয়সায় আজকে এখানে এসেছে। ক্রিস, তুমি কি উঠে দঁাড়াবে যেন অন‍্যরা দেখতে পায় -- একজন স্বল্প বয়সী, দূরদর্শী ফিল্ম নির্মাতা, যে একটি ছবি বানিয়েছে। (তালি) এই চলচ্চিত্রটির নাম "বিশ্ব শান্তি এবং ৪র্থ শ্রেণীর অন‍্যান‍্য অর্জণ" ও আমাকে ছবিটি করার প্রস্তাব দেয় -- নামটা খুব ভালো হয়েছে। ও আমাকে ছবিটি করতে বলল, এবং বলল, "হঁা, হয়ত ছবিটি স্থানীয় টেলিভিশনে দেখাবে, এবং আমরা আমাদের বন্ধুদেরকে শুভেচ্ছা জানাতে পারব।" কিন্তু ছবিটি আসলেই অসংখ‍্য যায়গায় গেছে। এটি এখনো ঋণের মধে‍্য আছে, কিন্তু ক্রিস ব‍্যবস্থা করেছে, নিজে ত‍্যাগ স্বীকার করে, এই ছবিটি শেষ করতে। তো আমরা একটা সিনেমা বানালাম এবং দেখা গেল এটা শুধুমাত্র আমার গল্পের চেয়ে বেশি কিছু, শুধু একজন শিক্ষকের গল্পের চেয়ে বড়। এ এমন এক গল্প যা সমগ্র শিক্ষক এবং শিক্ষকতার সাক্ষ‍্য দেয়। এটি একটি সুন্দর জিনিস।

5:08 এবং আজব বেপার হচ্ছে, যখন আমি ছবিটা দেখি -- আমার একটা ভয়ের অনুভূতি হয়েছিল দেখার সময় আমি নিজেকে আসলেও অদৃশ‍্য হয়ে যেতে দেখলাম। আমি দেখলাম যে আমার শিক্ষকেরা আমার মাঝ থেকে ফুটে উঠছে। দেখলাম, আমার হাই স্কুলের জ‍্যামিতি শিক্ষক মি. রাসেল এর সাইকেলের হাতলের মত গঁোফের নিচ দিয়ে বঁাকা হাসি। ওই হাসিটাই আমি হাসি -- ওটা উনার হাসি। আমি দেখলাম জ‍্যান পোলো'র ঝলকানো চোখ। এবং সেগুলো রাগে ঝলকায়নি, চোখদুটো চকচক করছিল ভালোবাসায়, ছাত্রদের প্রতি তঁার গভীর ভালোবাসা থেকে। আর আমারও মাঝে মাঝে এমন চোখ চকচক করে ওঠে। এবং আমি দেখলাম মিস এথেল জে. ব‍্যাংক্স কে যিনি মুক্তার গহনা আর হাই হীল জুতা পরে এলিমেনটারি স্কুলে আসতেন রোজ। আর উনার ছিল সেই প্রাচীন স্কুল শিক্ষকদের মত চাহনী। আপনারা জানেন আমি কোন চাহনীর কথা বলছি। (হাসি) "এবং আমি আমার পেছনে তোমাকে নিয়ে কথাও বলছি না, কারণ আমার মাথার পেছনেও চোখ আছে।" (হাসি) আপনারা সেই শিক্ষককে চেনেন তো? আমি ওই চাহনী খুব বেশি ব‍্যবহার করি না, কিন্তু ওই দৃষ্টি আমার ঝুলিতে মজুদ আছে। আর মিস ব‍্যাংক্স আমার গুরু হিসেবে সবসময় ছিলেন।

6:17 আর তারপর আমি দেখলাম আমার নিজের বাবা-মা কে, আমার প্রথম শিক্ষক তঁারা। আমার বাবা, ভীষণ আবিষ্কার প্রবণ, স্পেস বিষয়ক চিন্তাবিদ। আর ও হচ্ছে আমার ভাই ম‍্যালকম, ওই যে ডান দিকে। এবং আমার মা, যিনি আমাকে চতুর্থ শ্রেণীতে পড়িয়েছিলেন ভার্জিনিয়ার একটি বিচ্ছিন্ন স্কুলে, উনি ছিলেন আমার অনুপ্রেরণার উৎস। আর সতি‍্য, আমার এমন অনুভূতি হয়, যখন আমি সিনেমাটি দেখি -- আমার একটা ভঙ্গি আছে উনি করেন, এই রকম -- আমার মনে হয় আমি হচ্ছি উনার সব ভঙ্গিগুলোর ধারাবাহিক রুপ। আমি হচ্ছি উনার িশক্ষকতার এক ভঙ্গি। এবং সুন্দর জিনিসটা হল, আমি আমার মেয়েকে এলিমেন্টারি স্কুলে পড়ানোর সুযোগ পেয়েছিলাম, মেডেলিন-এ। আর এভাবে আমার মা'এর ভঙ্গিগুলো অনেক প্রজন্মের মাঝে বহাল রয়ে যাচ্ছে। এটা একটা অদ্ভুত অনুভূতি এই পারিবারিক পরম্পরার ব‍্যপারটা। তাই আমি এখানে দঁাড়িয়ে আছি অনেক মানুষের কঁাধে ভর করে। আমি এখানে একা নই। এই মঞ্চে আজ অনেকেই আছেন।

7:11 এবং এই বিশ্ব শান্তি গেমটি যা নিয়ে আমি কথা বলতে চাই। এটা এভাবে শুরু হয়েছিলঃ এইটা মাত্র একটা চার-ফুট বাই চার-ফুট এর একটা প্লাইউড বোর্ড ১৯৭৮ সালে, মধ্য-শহরের একটা শহুরে স্কুলে। আমি আফ্রিকার ছাত্রদের জন‍্য একটা পাঠ তৈরি করছিলাম। আমরা সেখানে দুনিয়ার সমস্ত সমস‍্যাগুলোকে ঢুকাই, তারপর ভাবলাম, ওদেরকেই এগুলোর সমাধান করতে দিই। আমি লেকচার দিতে চাইনি অথবা শুধু বই পড়তে দিতে চাইনি। আমি চেয়েছিলাম ওরা মিশে যাক এবং ওরা ওদের নিজেদের মাধ‍্যমেই শেখার অনুভূতিটা রপ্ত করুক। তো আমি ভাবলাম, ওরা তো গেম খেলতে ভালোবাসে। আমি কিছু একটা বানাব -- আমি অবশ‍্য বলিনি সেটা ইন্টার‍্যাকটিভ হবে। এই ইন্টার‍্যাকটিভ শব্দটি ১৯৭৮ সালে ব‍্যবহার হত না -- কিন্তু সেটি আসলে ইন্টার‍্যাকটিভ ছিল। তো আমরা গেমটি বানালাম, এবং তারপর থেকে সেটি বেড়ে উঠছে একটা চার-ফুট বাই চার-ফুট বাই চার-ফুট প্লেক্সিগ্লাস কাঠামো তে। এর আছে চারটি প্লেক্সিগ্লাস লেয়ার।

7:59 এর একটা বাইরের দিকের লেয়ার আছে সাথে আছে কৃষ্ণগহ্বর আর স‍্যাটেলাইট এবং আছে গবেষণা স‍্যাটেলাইট আর মহাজাগতীক বস্তুর খনি। আছে আকাশ এবং মহাকাশ বিভাগ সাথে বড় বড় তুলার মেঘ যেগুলো আমরা এদিক সেদিক নাড়াই আছে আঞ্চলিক আকাশ সীমা এবং বীমান বাহিনী, একটি ভূমি এবং সমূদ্র সমতল আছে যেখানে গেমের হাজার হাজার খেলনা আছে -- এমনকি একটি সাগরতলের বিভাগও আছে সাথে আছে সাবমেরীন আর সমূদ্রতলবর্তী খনি। বোর্ডের চারপাশ জুড়ে চারটি দেশ আছে। বাচ্চারাই দেশগুলোর নাম ঠিক করে -- কিছু দেশ ধনী আর কিছু গরীব। তাদের বিভিন্ন সম্পদ আছে, বানিজি‍্যক এবং সামরিক। এবং প্রতে‍্যক দেশের একটি পরিচলনা পরিষদ আছে। সেখানে আছেন একজন প্রধান মন্ত্রী, সরাষ্ট্র সচিব, প্রতীরক্ষা মন্ত্রী এবং একজন সি.এফ.ও, অথবা অর্থ সচিব। আমি প্রধান মন্ত্রীর পদটা বেছে দেই ওদের সাথে আমার সম্পর্কের ভিত্তিতে। আমি তাদের দায়ীত্বের প্রস্তাব দিই, ওরা ইচ্ছা করলে তা না করতে পারে, এবং তখন তারা কেবিনেটে তাদের নিজেদের পদ নিজেরা বেছে নেয়। এখানে একটা বিশ্ব ব‍্যাংক আছে, অস্ত্র ব‍্যবসায়ী আছে এবং জাতিসংঘ আছে। একজন আবহাওয়ার দেবীও আছে যে দৈব পরিবর্তণশীল স্টক মার্কেট এবং আবহাওয়া নিয়ন্ত্রণ করে।

8:48 (হাসি)

8:50 এই শেষ নয়। এরপর আছে একটি ১৩ পাতার সমস‍্যবলীর ডকুমেন্ট যাতে ৫০ টি সমন্বীত সমস‍্যা আছে। যেন, এর মধে‍্য যদি একটা জিনিস বদলায় তো বাকী সব কিছুও বদলাবে। আমি ওদেরকে এই জটিলতার জালের মধে‍্য ফেলে দিই। ওরা আমার উপর আস্থা রাখে কারণ আমাদের মধে‍্য একটি সুগভীর, গাঢ় সম্পর্ক আছে। এবং এই এতসব সমস‍্যার সাথে, আমাদের -- যেমন -- জাতিগত এবং সংখ‍্যালঘু সংক্রান্ত উত্তেজনা রয়েছে; আমাদের আছে রাসায়নিক এবং পারমাণবিক দূষণ পারমাণবিক বিকীরণের বৃদ্ধি। সাগরে তেল নিসরণ, পরিবেশগত বিপর্যয়, জলসীমা সংক্রান্ত বিতর্ক, প্রজাতন্ত্রগুলোর ভাঙ্গন, ক্ষুধা-মহামারি, বিলুপ্তপ্রায় পশুপাখি এবং পৃথিবীর তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়া। যদি আল গোর এখানে থাকেন, আমি অ‍্যাঙ্গোর-হার্ট এবং ভেনাবল স্কুল থেকে আমার চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রদের আপনার কাছে পাঠাব কারণ ওরা পৃথিবীর তাপমাত্রা বাড়ার সমস‍্যা এক সপ্তাহে সমাধান করেছে। (হাসি) (তালি) এবং ওরা এইটা অসংখ্য বার করেছে।

9:40 (হাসি)

9:42 তো গেমের মধে‍্য আমার একজন অন্তর্ঘাতক আছে -- কোন একজন বাচ্চা -- সাধারণত কোন দুষ্টু বাচ্চা -- এবং আমি আমার দুষ্টু বাচ্চাদের কাজে লাগাই কারণ ওরা, বাহ্যত, গেমের মধে‍্য ওদের অবস্থান এবং দুনিয়াকে রক্ষা করছে। এবং ওরা গেমের সবকিছুর ক্ষতি করার চেষ্টা করছে। ওরা চুপিসারে ভুল তথে‍্যর মাধ‍্যমে এটা করে থাকে এবং অসংলগ্ন আর অপ্রাসঙ্গিক তথে‍্যর মাধ‍্যমে, ওরা সবাইকে আরও গভীর ভাবে চিন্তা করাচ্ছে। অন্তর্ঘাতকেরা আছে, এবং আমরা সু জান এর 'দি আর্ট অফ ওয়ার' বইটিও পড়ি। চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্ররা তা বুঝতে পারে -- নয় বছর বয়সী -- এবং ওরা এটি নিয়ন্ত্রণ ও ব‍্যবহার করতে পারে বুঝতে পারে কিভাবে, অনুসরণ না করা যায় -- শুরুতে ওরা অনুসরণ করে -- ক্ষমতা এবং ধ্বংসের পথ, যুদ্ধের পথ। ওরা অদুরদর্শী প্রতিকৃয়াগুলো এবং আবেগ তাড়িত চিন্তাগুলো উপেক্ষা করতে শেখে, ওরা সুদূর প্রসারী চিন্তা করাতে শেখে আরও সুশৃঙ্খল পদ্ধতিতে।

10:30 স্টুয়ার্ট ব্র‍্যান্ড এখানে আছেন, এবং এই গেমের একটা আইডিয়া উনার কাছ থেকে এসেছে কোইভোলু‍্যশন ত্রৈমাসিক পত্রিকায় একটা লেখা শান্তিরক্ষী বাহিনী সম্পর্কে। এবং এই গেমে, মাঝে মাঝে ছাত্ররা সতি‍্য সতি‍্য শান্তিরক্ষী বাহিনী গঠন করে। আমি কেবল মাত্র সময় দেখি। আমি শুধুমাত্র একজন পথ পরিষ্কারক, ব‍্যবস্থাপক। ছাত্ররায় গেমটি চালায়। আমার কোন ধরণের নীতি নির্ধারণী ক্ষমতা থাকে না-- যেই মাত্র ওরা খেলা শুরু করে। তো আমি আপনাদেরকে দেখাতে চাই...

10:54 (ভিডিও) ছেলে: বিশ্ব শান্তি গেম ছেলেখেলা নয়। আপনি আসলে সারা বিশ্বের দেখভাল করতে হয় কিভাবে তার শিক্ষা পাচ্ছেন এ থেকে। দেখুন মি. হান্টার এটি করছেন কারন তিনি বলেন তার সময়টা অনেক বিশৃঙ্খলায় ভরা, এবং উনি আমাদেরকে বলতে চাচ্ছেন কিভাবে এই সমস‍্যা ঠিক করা যায়।

11:07 জন হান্টার: আমি ওদেরকে দিয়েছিলাম একটি -- (তালি) আসলে, আমি ওদেরকে কিছু বলতে পারিনা, কারন আমি উত্তরটা জানিনা। এবং আমি তাৎক্ষণিক ওদেরকে সতি‍্যটা বলে দিই যে: আমি জানিনা। এবং যেহেতু আমি জানিনা, ওদেরকেই এই উত্তর খুজে বের করতে হবে। আর তাই আমি ওদের কাছ থেকে ক্ষমাও চেয়ে নিই। আমি বলি, "ছেলেমেয়েরা, আমি খুবই দুক্ষিত, কিন্তু সত‍্যটি হচ্ছে আমরা তোমাদের কাছে এই পৃথিবীটা এমন দুঃক্ষভারাক্রান্ত এবং বাজে অবস্থায় রেখে গেছি, এবং আমরা আশা করি তোমরা একে আমাদের জন‍্য ঠিক করে দিতে পারবে, এবং হয়ত এই গেমটি তোমাদেরকে এই কাজ কিভাবে করতে হয় তা শিখতে সাহায‍্য করবে।" এটি একটি একান্ত ক্ষমা প্রার্থণা, এবং ওরা এটিকে খুবই গুরুত্বের সাথে নেয়।

11:39 এখন আপনারা হয়ত ভাবছেন এই যাবতিয় জটিলতা আসলে দেখতে কেমন হয়। আসলে গেমটি যখন শুরু হয়, এই হচ্ছে সেই চেহারা

11:45 (ভিডিও) জ.হা: আচ্ছা, আমরা এখনকারমত আলোচনায় আসি। যাও (কথাবার্তা)

11:56 জ. হা: তোমাদের কাছে আমার প্রশ্ন হচ্ছে, এই ক্লাসরুমের দায়িত্বে এখন কে আছে? এটি একটি গুরুতর প্রশ্ন: আসলেই দায়িত্বে কে আছে? আমি ক্লাসরুমের দায়িত্বটা ছাত্রদের উপর ছেড়ে দিতে শিখেছি ধীরে ধীরে। এর মাঝে একরকম বিশ্বাস এবং বোঝাপড়া আছে এবং নীতির প্রতি আস্থা আছে যা আমাকে এমনিতেই করতে হয় না আমি একজন নতুন শিক্ষক হিসেবে ভেবেছিলাম, আমাকে: ক্লাসরুমের প্রতে‍্যকটি কথপকথন এবং প্রতিকৃয়াকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। এটি অসম্ভব। ওদের সম্বিলিত জ্ঞান আমার জ্ঞানের চেয়ে অনেক বেশি, এবং ওদের কাছে আমি প্রকাশে‍্য এটি স্বীকার করি। তো আমি আপনাদের সাথে দ্রুত কয়েকটি গল্প বলতে চাই কিছু রূপকথার মত ঘটনার গল্প।

12:31 এই গেমে আমাদের সাথে ছিল একটি ছোট্ট মেয়ে, এবং ও ছিল সবচে গরীব দেশটির প্রতিরক্ষা মন্ত্রি প্রতিরক্ষা মন্ত্রি -- ওর ছিল ট‍্যাংক দল এবং বিমান বাহিনী এগুলো। এবং ও ছিল ভিষণ ধনী, তেল সমৃদ্ধ একটি দেশের প্রতিবেশি। কোন প্ররচণা ছাড়াই, হঠাৎ করে ও আক্রমণ করে বসল, ওর প্রধানমন্ত্রীর আদেশের বিরুদ্ধেই, ঐ পাশের দেশের তেল খনিগুলোতে, ও তেল খনির মজুদগুলোর ভেতরে মার্চ করে ঢুকল, চারপাশ ঘিরে ধরল, একটাও গুলি না চালিয়ে, দখল করল এবং আয়ত্বে রাখল। এবং ওই প্রতিবেশি রাষ্ট্র কোন ধরণের সামরীক তৎপরতা নিতে ব‍্যর্থ হল কারন ওদের যাবতিয় তেলের সরবরাহ তো বন্ধ হয়ে ছিল।

13:02 আমরা সবাই ওর প্রতি মনক্ষুন্ন, "তুমি কেন এরকম করছ? এটা বিশ্ব শান্তি গেম। তোমার সমস‍্যাটা কী?" (হাসি) ও ছিল একটা ছোট মেয়ে, ওর নয় বছর বয়সে, গেমের যন্ত্রগুলো ধরে বলল, "আমি জানি আমি কী করছি।" ও এটা ওর মেয়ে বন্ধুদের বলেছিল। এর মধে‍্য একটা ফঁাক ছিল। এবং আমরা এ থেকে শিখলাম, আপনি আসলেই ট‍্যাংকওয়ালা এক নয় বছর বয়সী মেয়ের ধারে কাছে যেতে চাইবেন না। (হাসি) ওরা হচ্ছে কঠিনতম প্রতিপক্ষ। এবং আমরা খুবই মনক্ষুন্ন হলাম। আমি ভাবলাম আমি শিক্ষক হিসেবে ব‍্যর্থ হয়েছি। ও কেন এমন করবে?

13:32 কিন্তু আমি গেমের আর কয়েকদিন পর দেখতে পেলাম -- এরকম সময় আসে যখন আমরা একটি দলের সাথে সমঝতার আলচনা করি -- আসলে সবগুলো দলের সাথেই আলাপ আলোচনার একটি সময় আছে, এবং প্রতে‍্যকটি দল এই সুযোগ পায়, এবং তখন আমরা বারবার আলাপ আলোচনা চালাতে থাকি, এভাবে একটি গেমের দিনে একটি দলের ভাগ পড়ে। তো গেমের কয়েক দিন পরে জানা গেল যে ওই ধনী রাষ্ট্রটি একটি সামরীক নীল নকশা করছিল সারা পৃথিবীকে শাসন করার জন‍্য। ওদের যদি শুধু তেলের সরবরাহ থাকত, তাহলে ওরা এটা করে ফেলত। ওই মেয়েটি ভেক্টর লাইন এবং ট্রেন্ড লাইন দেখে ওদের উদ্দেশ‍্য বুঝতে পেরেছিল আমাদের চেয়ে অনেক আগেই এবং বুঝতে পেরেছিল কী ঘটতে যাচ্ছে এবং ও একটি দার্শনীক সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিল একটি শান্তির গেমে আক্রমণ করে।

14:11 এবং ও ক্ষুদ্র একটি যুদ্ধকে ব‍্যবহার করে বৃহৎ যুদ্ধকে নিবৃত করেছিল, তাই আমরা থামলাম এবং ভালো একটি দার্শনিকতাপূর্ণ আলোচনা হলো যে ওই ঘটনাটি ঠিক ছিল কিনা, শর্তপূর্ণ ভালো, নাকি ভুল। ওদেরকে যেসব চিন্তার মধে‍্য দিয়ে যেতে হয় এই হচ্ছে তার নমুনা, এবং পরিস্থিতি। আমি যদি এগুলো শিখাতে যেতাম তাহলে এমন করে ডিজাইন করা হত না। এইটা ওদের সম্মিলিত জ্ঞানের মধে‍্য দিয়ে স্বঃতস্ফুর্তভাবে এসেছে।

14:29 (তালি)

14:35 আরেকটি উদাহরণ, একটি খুবই সুন্দর ঘটনা ঘটেছিল। গেমে আমাদের একটি চিঠি আছে। তুমি যদি একজন সামরীক কমান্ডার হও এবং সেনাদল পরিচালনা কর -- বোর্ডের উপরে ওই ছোট্ট প্লাস্টিকের খেলনাগুলো -- এবং তুমি যদি ওদেরকে হারাও আমি ওদের কথা চিঠিতে রাখি। তোমাদেরকে ওদের বাবা-মা কে চিঠি লিখতে হবে -- তোমার কাল্পনিক সেনাদলের কাল্পনিক পিতামাতা -- ব‍্যাখ‍্যা করা হয় যুদ্ধে কী ঘটেছিল, পুরস্কার সমগ্রী এবং স্বান্তনার কথা। তাহলে তোমার যেন আরেকটু বেশি চিন্তা করতে হয় যুদ্ধ শুরু করার আগে। এবং এভাবে আমাদের এক পরিস্থিতির উদ্ভব হল -- এই গতবছর গরমের সময়, আলবেমারলে কাউন্টির অ‍্যাঙ্গোর-হার্ট স্কুলে -- আমাদের সামরীক কমান্ডারদের একজন উঠে দঁাড়ালো ওই চিঠিটি পড়ার জন‍্য এবং আরেকজন বাচ্চা উঠে দঁাড়াল এবং বলল, "মি. হান্টার, চলুন জিজ্ঞেস করি -- এখানে একজন অভিভাবক উপস্থিত আছেন।" সেদিন একজন অভিভাবক উপস্থিত ছিলেন, উনি এমনিই ঘরের পেছন দিকে বসে ছিলেন। "চলুন আমরা ওই মা কে অনুরোধ করি চিঠিটি পড়ার জন‍্য। এটি যদি উনি পড়েন তাহলে ব‍্যপারটা আরও বাস্তব হয়ে উঠবে।" তো আমরা তাই করলাম, উনাকে বললাম, উনি খেলার ছলে চিঠিটি তুলে নিলেন। "অবশ‍্যই।" উনি পড়া শুরু করলেন। উনি একটি বাক‍্য পড়লেন। দুইটা বাক‍্য পড়লেন। তৃতীয় বাক‍্যটি পড়ার সময় উনি কঁেদে ফেললেন। আমার চোখেও পানি। সবাই বুঝল যখন আমরা কাওকে হারাই, বিজয়ীরা সেই মৃত‍্যুতে উল্লাস করে না। আমরা সবাই আসলে হারি। এটি একটি অসাধারণ ঘনটা এবং এক অদ্ভুত অনুধাবন।

15:44 এ বেপারে আমার বন্ধু ডেভিড কী বলে সেটি আমি আপনাদেরকে দেখাব। ও অনেক যুদ্ধক্ষেত্রে কাজ করেছে।

15:48 (ভিডিও) ডেভিড: আমাদের আসলেও যথেষ্ট পরিমান মানুষ ছিল আক্রমণের জন‍্য। মানে, আমরা আসলে বেশির ভাগ সময় ভাগ‍্যবান ছিলাম। কিন্তু এখন আমি আসলেই খুব আজব এটকা অনুভূতি হচ্ছে, কারন সান জু এক সপ্তাহে আমাকে যা বলেছিল আমি এখন সেই অবস্থায় আছি। কোন এক সপ্তাহে ও বলেছিল, যারা যুদ্ধে যায় এবং জিতে তারা আবার যুদ্ধে যেতে চাইবে, এবং যারা যুদ্ধে হারে তারা আবার যেতে চাইবে জেতার জন‍্য।" এবং আমি যুদ্ধে জিতছি, তাই আমি যুদ্ধে যাচ্ছি, আরও অনেক যুদ্ধে। এবং আমার মনেহয় এমন হয়ে ওঠাটা একটু অদ্ভুত যেমনটা সান জু বলেছিল।

16:22 জ.হা: যতবার এটা দেখি আমি আমি শিহরীত হয়। এমন ধরনের ঘটনাই ঘটুক এমনটা চাইবেন আপনারা। এবং আমি সেটা ডিজাইন করতে পারি না, পরিকল্পনা করতে পারিনা, এবং এমনকি এটার টেস্টও করতে পারিনা। শুধু এটার স্বকীয় মূল‍্যায়ন করা যায়। আমরা জানি এটি শিক্ষার একটি আসল মূল‍্যায়ন। আমােদর কাছে প্রচুর তথ‍্য আছে, কিন্তু আমার ধারনা মাঝে মাঝে আমরা তথ‍্যকে ছাড়িয়ে যাচ্ছি বাস্তবে যা ঘটছে সেই সতে‍্যর কাছে পৌঁছাচ্ছি।

16:46 আমি শুধু আমার তৃতীয় গল্পটি বলব। আমার বন্ধু ব্রেনানকে নিয়ে গল্প। আমারা স্কুলের পর এক সেশন খেলেছিলাম অনেক সপ্তাহ, প্রায় সাত সপ্তাহ, এবং আমরা ৫০ টি সমন্বীত সমস‍্যার সমাধান করে ফেললাম। এবং গেমটি যেভাবে জিততে হয়, পুরো ৫০ টি সমস‍্যাই সমাধান করতে হয় এবং প্রতে‍্যকটি দেশের সম্পদের পরিমাণ শুরুতে যা ছিল তারচে বাড়তে হবে। কেউ গরীব, কেউ ধনী। এমন অসংখ‍্য আছে। একবার বিশ্ব ব‍্যাংক এর প্রেসিডেন্ট ছিল এক তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্র। ও বলল, "ট্রিলিয়ন লিখতে কয়টা শুন‍্য লাগে? আমাকে এক্ষুনি এটা হিসাব করতে হবে।" কিন্তু ও গেমে অর্থনৈতিক নীতিমালা নির্ধারণ করছিল হাইস্কুলের যে ছাত্ররা ওর সাথে খেলছিল তাদের জন‍্য।

17:21 তো যে দলটা সবচে গরীব ছিল তারা আরও গরীব হয়ে গেল। ওদের জয়ের কোন সম্ভাবনাই ছিল না। আর আমাদের ঘড়ি চারটার দিকে এগুচ্ছিল, আমাদের শেষ করার সময় -- তখন এক মিনিটমত বাকী ছিল -- আর পুরো ঘরজুড়ে তখন হতাশা জেঁকে বসেছে। আমার মনেহল, শিক্ষক হিসেবে আমি ব‍্যর্থ হতে চলেছি। আমার এইটা বোঝা উচিৎ ছিল যেন ওরা জিততে পারে। ওদের এরকম হেরে হওয়াটা ঠিক হচ্ছে না। আমার কারনেই ওরা হেরে যাচ্ছে। আমি ভিষণ মনখারাপ হচ্ছিল এবং বিষন্ন মনে হচ্ছিল। এবং হঠাৎ, ব্রেনান আমার চেয়ারের পাশদিয়ে হেঁটে গেল ও ঘন্টাটি হাতে নিল, আমি যে ঘন্টাটি বাজাই কেবিনেটের কোন পরিবর্তন অথবা পুনঃআয়োজনের সংকেত হিসেবে, এবং ও তার চেয়ারে ফিরে গেল, ঘন্টাটি বাজালো। সবাই ওর চেয়ারের পাশে ছুটে গেল, চারপাশে চলছিল চিৎকার, হইচই চলছিল, সবাই তাদের কাগজপত্রগুলো উড়াচ্ছিল। ওরা অনেক কাগজপত্র পায় যেগুলোতে বিভিন্ন গোপন তথ‍্য থাকে। ওরা হাত-পা ছুড়াছুড়ি করছিল, দৌড়াদৌড়ি করে বেড়াচ্ছিল। আমি জানতাম না ওরা কী করছিল। আমি আমার ক্লাসরুমের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছিলাম। প্রিন্সিপ‍্যাল আসলেন, আমি বোধহয় চাকরি হারাচ্ছি। অভিভাবকেরা জানালা দিয়ে তাকাচ্ছিলেন।

18:12 এবং ব্রেনান তার চেয়ারের দিকে ফিরে গেল। সবাই তাদের যার যার আসনে ফিরে গেল। সে আবার ঘন্টা বাজাল। আর বলল, "আমাদের আছে" -- এবং ঘড়িতে ১২ সেকেন্ড বাকি ছিল -- "আমরা সবগুলো দেশ আমাদের যাবতিয় তহবিল একসাথে জড় করেছি। আমরা ৬০০ বিলিয়ন ডলার পেয়েছি, আমরা এই টাকা ওই গরীব দেশটিকে অনুদান হিসেবে দিতে চাই। এবং ওরা যদি তা গ্রহণ করে, তাহলে এটা ওদের সম্পদের মান বাড়াবে এবং আমরা গেমটি জিততে পারি। আপনি কি সম্মত হবেন?" ঘড়িতে তখন তিন সেকেন্ড বাকী আছে। সবাই তখন সেই দেশটির প্রধানমন্ত্রীর দিকে তাকিয়ে আছে, এবং ও বলল, "হাঁ" এবং ওই গেমটি জেতা হল। স্বতঃস্ফুর্ত সমবেদনা এটি কখনো পরিকল্পনা করে হয়না, এটি ছিল অপ্রত‍্যাশিত এবং অনিশ্চিত ঘটনা।

18:49 আমাদের খেলা প্রতে‍্যকটি গেম ভিন্ন। কিছু গেম হয় সামাজিক বিষয়াদি নিয়ে, কিছু হয় অর্থনৈতিক বিষয় নিয়ে, কিছু গেম খেলা হয় যুদ্ধ নিয়ে। কিন্তু আমি মানুষ হওয়ার বাস্তবতাটা ওদের কাছে অস্বীকার করার চেষ্টা করতাম না। আমি ওদেরকে সেখানে যেতে দিতাম এবং, ওদের নিজেদের অভিজ্ঞতার মধে‍্য দিয়ে, রক্তপাতহীন পদ্ধতিতে শেখার মাধ‍্যমে ওরা যেটাকে ভুল হিসেবে দেখে সেটা করা থেকে কিভাবে বিরত থাকা যায়। এবং ওরা সঠিকটা কী সেটা খুঁজে বের করে ওদের নিজেদের মত করে, নিজেদের মাধ‍্যমেই। আর তাই এই গেমের মধ‍্য দিয়ে, আমি অনেক কিছু শিখেছি, কিন্তু আমি বলব যদি শুধুমাত্র ওরা কোন জটিল চিন্তার পদ্ধতি বেছে নিত অথবা কোন সৃজনশীল চিন্তা পদ্ধতি এই গেম থেকে এবং পৃথিবীর জন‍্য ভালো কিছু বের করে আনত, ওরা হয়ত আমাদের সবাইকে রক্ষা করবে। শুধুমাত্র যদি ওরা কিছু খঁুজে আনে।

19:39 এবং আমার সকল শিক্ষকের পক্ষ থেকে যাঁদের কঁাধে ভর করে আজ আমি দঁাড়িয়ে, আপনাদের অসংখ ধন‍্যবাদ। ধন‍্যবাদ আপনাদের।

19:46 (তালি)